ঢাকায় যত মুক্তমঞ্চ ও কিছু কথা

শুক্রবার, ০৫ নভেম্বর ২০২১ | ৬:০৯ অপরাহ্ণ | 176 বার

ঢাকায় যত মুক্তমঞ্চ ও কিছু কথা

সাংস্কৃতিক বিকাশের কেন্দ্রবিন্দু ঢাকায় গান এবং নাট্য পরিবেশনার অনেক জায়গা আছে। তবে এগুলোর বেশিরভাগই বড় বড় স্টেডিয়াম বা অডিটোরিয়াম। এদের মাঝে কিছু অ্যাম্ফিথিয়েটারও আছে। খোলা আকাশের নিচে গোলাকার বসার জায়গা দিয়ে বানানো এইসব অ্যাম্ফিথিয়েটারের শুরুটা হয়েছিল প্রাচীন গ্রিসে। ঢাকায় এ রকম ভেন্যু খুব কমই আছে, যেগুলো আছে, সেগুলোকে আমরা বাংলায় মুক্তমঞ্চ বলি। আজকে আমরা ঢাকার মুক্তমঞ্চ গুলোর গল্পগুলি ঘুরে দেখব।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যান মুক্তমঞ্চ

ঢাকার মুক্তমঞ্চ গুলোর তালিকায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যান আমাদের জাতির ইতিহাসে বিশাল তাৎপর্য বহন করে। এই উদ্যানের প্রাঙ্গনে জাতীয় স্মৃতিসৌধ এবং মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের পাশাপাশি আছে একটি অত্যন্ত সুন্দর একটি মুক্তমঞ্চ। এই মুক্তমঞ্চে সারা বছরে তেমন কোনো অনুষ্ঠান না হলেও ফেব্রুয়ারি মাসে একুশে বই মেলার সময়ে এটি প্রাণ ফিরে পায়।

বই মেলার বেশিরভাগ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান মুক্তমঞ্চে হয়। তখন এসব অনুষ্ঠান এবং পারফর্মেন্স দেখার জন্য এই মুক্তমঞ্চে বহু মানুষের ভিড় দেখা যায়। এই মুক্তমঞ্চের অবস্থান এবং একুশে বই মেলার সময়ে এর গুরুত্ব সোহরাওয়ার্দী উদ্যান মুক্তমঞ্চকে ঢাকার অন্যতম সেরা মুক্তমঞ্চে পরিণত করেছে।

সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চ

এটি ঢাকার মুক্তমঞ্চ গুলোর তালিকায় অন্যতম। সেলিম আল দীন মুক্তমঞ্চ সাভারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত। বিখ্যাত নাট্যকার সেলিম আল দীনের নামে নামকরণ করা হয়েছে এই মুক্তমঞ্চকে। বাংলা নাটকে অনন্য অবদানের জন্য তাঁকে এদেশের অন্যতম সেরা নাট্যকার বলা হয়ে থাকে।

তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক এবং নাট্য বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। সেখানে শিক্ষক হিসাবে কাজ করার সময় সেলিম আল দীন দারুণ সব নাটক লেখেছিলেন। জাহাঙ্গীরনগরে মুক্তমঞ্চের প্রতিষ্ঠানের পিছেও তার অনেক অবদান ছিল। তিনি ২০০৮ সালে হৃদরোগে মারা যাওয়ার পর এই মুক্তমঞ্চকে তাঁর নামের আদলে নতুন করে নামকরণ করা হয়।

এদেশের নাট্য শিল্পের জন্য এটাকে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্থান হিসেবে বিবেচনা করা হয়। দেশের শীর্ষস্থানীয় নাট্যদলগুলো এখানে পরিবেশনা করে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের যতো বড় বড় অনুষ্ঠান, কনসার্ট, নাচ কিংবা নাটক পরিবেশনা, সব এখানেই হয়ে থাকে। নাট্য অঙ্গনে এই স্থানের গুরুত্ব পাশাপাশি বাংলা নাটকে সেলিম আল দীনের অবদানের কারণে এটা ঢাকার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মুক্তমুঞ্চে পরিণত হয়েছে।

রবীন্দ্র সরোবর

ঢাকার মুক্তমঞ্চ গুলোর তালিকায় উল্লেখযোগ্য এটি। তবে এটা মুক্তমঞ্চ হিসেবে কম ব্যবহৃত হয়, এবং সামাজিক দেখাসাক্ষাতের কেন্দ্র হিসেবে বেশি কাজ করে। রবীন্দ্র সরোবরে প্রায়ই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। ঢাকার সবচেয়ে পুরনো আবাসিক এলাকা ধানমন্ডির একেবারে প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত রবীন্দ্র সরোবরের ঠিক পাশেই আছে ধানমন্ডি লেইক, যেখানে প্রায় প্রতিদিনই প্রচুর মানুষ ঘুরতে আসেন।

বাংলা নববর্ষের অনুষ্ঠানসহ এখানে অনেক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও হয়, যা দেখতেও এখানে সংস্কৃতি এবং শিল্প প্রেমীরা প্রায়ই ভিড় জমান। স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবসের মতো গুরুত্বপূর্ণ দিনেও এখানে নানা ধরণের বিশেষ অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। জাতীয় ছুটির দিনগুলোতে এবং বিশেষ উপলক্ষে এখানে হওয়া নানা ধরণের অনুষ্ঠান এবং পরিবেশনা ঢাকাবাসীদের কাছে রবীন্দ্র সরোবরকে প্রচণ্ড গুরুত্বপূর্ণ করে তুলেছে।

হাতিরঝিল মুক্তমঞ্চ

হাতিরঝিলে অবস্থিত অত্যন্ত সুন্দর মিউজিকাল ফাউন্টেনের পাশাপাশি এই মুক্তমঞ্চটিও ২০১৭ সালে খোলা হয়েছিল। এই মুক্তমঞ্চে প্রায় দুই হাজার মানুষের বসার জায়গা থাকার কারণে এটিকে অনায়াসেই ঢাকার সবচেয়ে বড় মুক্তমঞ্চের একটি বলা যায়। এটি ঢাকার সবচেয়ে সমৃদ্ধ অঞ্চলের একটি, গুলশানের খুব কাছেই অবস্থিত এবং এতে উচ্চমানের সব সুবিধা রাখার চেষ্টা করা হয়েছে।

এই মুক্তমঞ্চ হাতিরঝিলের অন্যতম উল্লেখযোগ্য কাঠামোর একটি। ভবিষ্যতে এই মুক্তমঞ্চটি ঢাকা অপেরা হাউজ কমপ্লেক্সের একটি অংশ হবে, যেই প্রকল্পে একটি আন্তর্জাতিক মানের অপেরা হাউজ, একাধিক সম্মেলন হল এবং একটি বহুতল গাড়ি পার্কিং সেন্টার করার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

আজকে আমরা ঢাকার সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ মুক্তমঞ্চগুলোর ব্যাপারে জানতে পেরেছি, যেগুলোর প্রতিটিরই নিজস্ব একটি ইতিহাস আছে। এর মধ্যে কোনগুলো আপনি ঘুরে দেখতে চান, কমেন্টে জানিয়ে দিন আমাদেরকে। অন্য কোনো মুক্তমঞ্চকে আমরা যদি এখানে উল্লেখ না করে থাকি, নির্দ্বিধায় জানিয়ে দিতে ভুলবেন না!

Comments

comments

সোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্রশনিরবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০ 

২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। নবধারা নিউজ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Development by: webnewsdesign.com